আমি বিগত কয়েকবছর যাবৎ দেখেছি, বাংলাদেশে তরুণ প্রজন্ম মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক, গণিত, বিজ্ঞান ইত্যাদি বিষয় নিয়ে ভিডিও করে সেগুলো ইউটিউবে আপলোড করে। ভিডিও করার জন্য ডিএসএলআর কিংবা ভালো ক্যামেরার স্মার্টফোন ব্যবহার করুনছেন, আর লেখার জন্য কলম, ব্ল্যাকবোর্ড কিংবা হোয়াইট বোর্ড ব্যবহার করুনছেন। বর্তমানে একটি নয়, দুটি নয় শত শত তরুণ এই কাজটি করুনছেন। কিন্তু দু:খের বিষয় উনারা এখনো এনালগ পদ্ধতিতেই এই ভিডিও গুলো করুনছেন। আবার এখানে অনেকের নিজের কোয়ালিটি নিয়েও প্রশ্ন আছে, তবুও ইউটিউব থেকে আর্ন করার উদ্দেশ্যে যত্রতত্র মানের ভিডিও করে আপলোড করুনছেন এবং কি বোঝাচ্ছেন, উনি নিজেই বুঝতেছেন কিংবা সন্দেহ আছে। আবার এমনও অনেক আছে, যারা অনেক ভালো বোঝাতে পারে, শেখাতে পারে কিন্তু অনলাইন সর্ম্পকে ধারণা না থাকায়, ভালো ক্যামেরা, ব্ল্যাকবোর্ড, ভিডিও করা ইত্যাদি ঝামেলার কারণে সাহস করুনছেন না।

আসলে আপনারা জেনে খুব অবাক হবেন যে সত্যিকার ডিজিটাল শিক্ষা আর অনলাইনে শেখাতে ক্যামেরা, ব্ল্যাকবোর্ড এইগুলোর কোনটিরই প্রয়োজন নেই।তরুণরা যারা নিজ উদ্যোগে এই ভিডিওগুলো করেন, উনাদের নিজেদের প্রযুক্তি সর্ম্পকে ভালো ধারণা না থাকায় এইভাবে ভিডিও করুনছেন এবং শিক্ষার্থীদের মুল্যবান সময় ব্যাহত হচ্ছে।।ইশিখন.কম এমন এক প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছে যেটা আপনাকে ঘরে বসেই ল্যাপটপেই একা একটা ভিডিও করে পাবলিশ করতে পারবেন। ভিডিওগুলো হাই রেজুলেশন, খুবই ক্লিয়ার এবং লেখাগুলো হুবহু এখানে যেমন দেখছেন এমনই দেখবেন।

মুলত আমরা আপনাকে একটি ইলেক্ট্রিক খাতা(প্যাড), কলম(টাচ পেন) দিবো, আর ব্ল্যাকবোর্ড হিসেবে ইশিখন পোর্টালের প্যাড (দেখতে এখানে ক্লিক করুন) ব্যবহার করবেন। ভিডিও এর জন্য আমরা কম্পিউটার স্ক্রিন রেকরুন্ডার দিবো। যেটা অটোম্যাটিক্যালি আপনার ক্লাসের সময় কম্পিউটার মনিটর/স্ক্রিন ভিডিও রেকরুন্ড করুনবে।

ইব্রাহিম আকবর প্রতিষ্ঠাতা ইশিখন.কম