বাংলাদেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা

বাংলাদেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা

ড. তারেক শামসুর রেহমান

বাংলাদেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে নানা বিতর্ক আছে। প্রায় ক্ষেত্রেই বলা হয়- বাংলাদেশের গণমাধ্যম, বিশেষ করে সংবাদপত্র, ইলেকট্রনিক মিডিয়া স্বাধীন নয়। বাংলাদেশের সংবিধানের ৩৯ অনুচ্ছেদে ‘চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা’র কথা বলা হয়েছে। ৩৯(১)-এ উল্লেখ করা হয়েছে, ‘চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দান করা হইল।’ ৩৯(১)(ক)-তে প্রত্যেক নাগরিকের বাক ও ভাব প্রকাশের স্বাধীনতার অধিকার এবং ৩৯(২)(খ)-তে সংবাদপত্রের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে। তবে এখানে বলা আছে, ‘রাষ্ট্রের নিরাপত্তা, বিদেশী রাষ্ট্রসমূহের সহিত বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, জনশৃংখলা, শালীনতা বা নৈতিকতার স্বার্থে অথবা আদালত অবমাননা, মানহানি বা অপরাধ সংগঠনে প্ররোচনা সম্পর্কে আইনের দ্বারা আরোপিত যুক্তিসঙ্গত বাধা-নিষেধ সাপেক্ষেই’ এ অধিকার নিশ্চিত হবে। তবে সংবাদপত্রগুলো এ স্বাধীনতা কতটুকু ভোগ করে এটা নিয়ে বিতর্ক আছে। সাংবাদিক নেতারা এবং দেশের শ্রেষ্ঠ আইনজীবীরা উচ্চ আদালতে একাধিক মামলায় এই ৩৯ ধারাটি উল্লেখ করে সংবাদপত্রের স্বাধীনতার পক্ষে বারবার যুক্তি উপস্থাপন করেছেন। কিন্তু রাষ্ট্র সংবাদপত্রের স্বাধীনতার ব্যাপারে কতটুকু আন্তরিক, সে প্রশ্ন আছেই। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে Special Power Act 1974 প্রবর্তন করা হয়েছিল। অভিযোগ আছে, ওই আইনের আওতায় সংবাদপত্র ‘নিয়ন্ত্রণ’ করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। এ বিশেষ আইনটি দীর্ঘদিন চালু ছিল। ১৯৯০ সালের গণঅভ্যুত্থানে সরকার পরিবর্তনের পর বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমদের নেতৃত্বে যে অন্তবর্তীকালীন সরকার গঠিত হয়েছিল, সেই সরকার Special Power Act 1974-এর কিছু ধারায় পরিবর্তন আনে। বিশেষ করে ওই আইনের ১৬, ১৭ ও ১৮ ধারা বাতিল করে সংবাদপত্রের স্বাধীনতার পথ কিছুটা প্রশস্ত করে। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশে গণমাধ্যমের পরিধি বেশ সম্প্রসারিত হয়েছে। একসময় বাংলাদেশ টেলিভিশন ছিল দেশের একমাত্র টিভি স্টেশন। কিন্তু এখন বেসরকারি পর্যায়ে বেশ কিছু টিভি চ্যানেল চালু রয়েছে। যেখানে অনেকটা নিয়ন্ত্রণবিহীনভাবেই সরকারকে সমালোচনা করে অনুষ্ঠান প্রচার করা হচ্ছে। টিভি প্রতিবেদনেও ব্যাপক বৈচিত্র্য এসেছে। টক-শোগুলোও বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে এবং বেশ কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এসব টক-শো স্পন্সর করুনছে। শুধু তাই নয়, Private Program Production policy in BTV 2001-এর আওতায় সরকারি বিটিভিতে বেসরকারি প্রোগ্রামও সম্প্রচার হচ্ছে, যার ফলে বিটিভির মান কিছুটা বেড়েছে। স্বাধীন গণমাধ্যমের ক্ষেত্রে এটা একটা উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি, সন্দেহ নেই। তবে সম্প্রচার নীতিমালা ২০১৪ নিয়ে নতুন করে কিছুটা বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। সাংবাদিক নেতারা মনে করুনছেন, এ নীতিমালা গ্রহণ করে সরকার তাদের সঙ্গে এক ধরনের বিশ্বাসঘাতকতা করেছে। ইংরেজী দৈনিক Dhaka Tribune তাদের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে, Information Ministry has issued the gazette notification of the National Broadcasting Policy 2014 in August 2014, though there has been a roar over the broadcasting policy. The Journalists leaders have claimed that they have been betrayed with the policy. BNP has called upon the Govt. to cancel the policy. সম্প্রচার নীতিমালায় একটি নিরপেক্ষ কমিশন গঠন করার প্রস্তাব করা হলেও এখন অব্দি এ কমিশন গঠন করা হয়নি। কাদের নিয়ে এ কমিশন গঠিত হবে, তাও স্পষ্ট নয়। কমিশনের কার্যাবলীর মধ্যে রয়েছে ইলেকট্রনিক মিডিয়ার কার্যাবলী দেখাশোনা এবং এ সংক্রান্ত নীতিমালা প্রণয়ন করা। কমিশন গঠনের এ সিদ্ধান্তকে গণমাধ্যমের করুন্মীরা স্বাগত জানিয়েছেন। গণমাধ্যম নিয়ে কাজ করা আন্তর্জাতিক একটি সংগঠন ‘Article 19’-এর বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের প্রধান তাহমিনা রহমান এ কমিশন গঠনের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছিলেন। তার মতে, ‘This would be a significant attempt toward distancing the government from functions of the electronic Press through this independent commission’। সম্প্রচার নীতিমালায় মিডিয়া করুন্মীদের কী করুনণীয়, কোনটা করা ঠিক নয়- এসব বিষয়ে কিছু কথা বলা হয়েছে। যেমন বলা হয়েছে- Under the policy, broadcast outlets are prohibited from disseminating any news, photos or videos that could tarnish the image of law enforcing agencies and armed forces. It prohibits any broadcasts that directly or through advertisement, run counter to the government or public interest, and forbids the broadcasting of news that could cause ‘communal discord’ or impede National Security. সুতরাং সম্প্রচার নীতিমালাটি যে কিছুটা ‘নির্দেশনামূলক’ তা অস্বীকার করা যাবে না। স্বাধীন গণমাধ্যমের জন্য এ নীতিমালাটি আদৌ ক্ষতিকরুন কিনা, ক্ষতিকরুন হলে কতটুকু ক্ষতিকরুন- এ প্রশ্ন উঠতেই পারে। ইতিমধ্যে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারাটিও বড় বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় বলা হয়েছে, সরকার নিরাপত্তাবোধ থেকে কার্টুন, ও ব্যঙ্গ-বিদ্রুপের মতো বিষয়গুলোকে বিবেচনায় নিয়ে অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করতে পারবে। উদ্বেগের জায়গাটা এখানেই।

যুগান্তর , ৩ ফেব্রুয়ারী

আরো পড়ুন:

৩৮ তম বিসিএস প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষা প্রস্তুতি আন্তর্জাতিকে, পার্ট – ১৮

৩৮ তম বিসিএস প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষা প্রস্তুতি আন্তর্জাতিকে, পার্ট – ১৯

৩৮ তম বিসিএস প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষা প্রস্তুতি আন্তর্জাতিকে, পার্ট – ২০

   
   

0 responses on "বাংলাদেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা"

Leave a Message

Your email address will not be published.