সারাদেশে ৩ থেকে ৫ মাসব্যাপী ফ্রিল্যান্সিং কোর্স প্রশিক্ষণ, বৃত্তি+চাকরির সুযোগ। মাত্র ১২,০০ থেকে ১৮,০০ টাকায় পাচ্ছেন ১২,০০০ থেকে ১৮,০০০ টাকার প্রতিটি কোর্স কুপনকোড: pro-offer  কিভাবে রেজিস্ট্রেশন করবেন দেখুন এখানে    আরো বিস্তারিত এখানে

জেনে নিন ভেজাল সার চিনার উপায়

বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ । সরকারের যুগোপযোগী প্রচেষ্টা ও কৃষকদের সহায়তায় দেশ এখন খাদ্যে সয়ংসম্পূর্ন । এদিকে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অধিক মুনাফার আসায় সারে ভেজাল মিশাচ্ছে । এসকল অসাধু ব্যাবসায়ীদের প্রতিহত করতে সরকার বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নিচ্ছে প্রিন্ট মিডিয়া ইলেকট্রনিক মিডিয়াতে ভেজাল সার চিনতে জনসাধারনের মাঝে জনসচেতনতা সৃষ্টি করুনছে । কৃষকভাইয়েরা একটু সতর্ক হলেই আসল সার ও ভেজাল সারের পার্থক্য বুঝতে পারবেন। নিচে ভেজাল ও আসল সার চিনার উপায় দেয়া হলো :
ইউরিয়া সার চেনার উপায়:
আসল ইউরিয়া সারের দানাগুলো সমান হয়। তাই কেনার সময় প্রথমেই দেখে নিতে হবে যে সারের দানাগুলো সমান কিনা। ইউরিয়া সারে কাঁচের গুড়া অথবা লবণ ভেজাল হিসাবে যোগ করা হয়। চা চামচে অল্প পরিমান ইউরিয়া সার নিয়ে তাপ দিলে এক মিনিটের মধ্যে অ্যামোনিয়ার ঝাঁঝালো গন্ধ তৈরি হয়ে সারটি গলে যাবে ও পানি ঠান্ড হবে। যদি ঝাঁঝালো গন্ধ সহ গলে না যায়, তবে বুঝতে হবে সারটি ভেজাল।
টিএসপি সার চেনার উপায়:
টিএসপি সার পানিতে মিশালে সাথে সাথে গলবে না। আসল টিএসপি সার ৪ থেকে ৫ ঘন্টা পর পানির সাথে মিশবে। কিন্তু ভেজাল টিএসপি সার পানির সাথে মিশালে অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই গলে যাবে বা পানির সাথে মিশে যাবে।
ডিএপি সার চেনার উপায়:
ডিএপি সার চেনার জন্য চামচে অল্প পরিমান ডিএপি সার নিয়ে একটু গরম করলে এক মিনিটের মধ্যে অ্যামোনিয়ার ঝাঁঝালো গন্ধ হয়ে তা গলে যাবে। যদি না গলে তবে বুঝতে হবে সারটি সম্পূর্ণরুপে ভেজাল। আর যদি আংশিকভাবে গলে যায় তবে বুঝতে হবে সারটি আংশিক পরিমান ভেজাল আছে। এছাড়াও কিছু পরিমান ডিএপি সার হাতের মুঠোয় নিয়ে চুন যোগ করে ডলা দিলে অ্যামোনিয়ার ঝাঁঝালো গন্ধ বের হবে। যদি অ্যামোনিয়ার ঝাঁঝালো গন্ধ বের না হয় তাহলে বুঝতে হবে সারটি ভেজাল।
এমওপি বা পটাশ সার চেনার উপায়:
পটাশ সারের সাথে ইটের গুড়া ভেজাল হিসাবে মিশিয়ে দেয়া হয়। গ্লাসে পানি নিয়ে তাতে এমওপি বা পটাশ সার মিশালে সার গলে যাবে। তবে ইট বা অন্য কিছু ভেজাল হিসাবে মিশানো থাকলে তা পানিতে গলে না গিয়ে গ্লাসের তলায় পড়ে থাকবে। তলানি দেখে সহজেই বুঝা যাবে সারটি আসল নাকি ভেজাল।
জিংক সালফেট সার চেনার উপায়:
জিংক সালফেট সারে ভেজাল হিসাবে পটাশিয়াম সালফেট মেশানো হয়। জিংক সালফেট সার চেনার জন্য এক চিলতে জিংক সালফেট হাতের তালুতে নিয়ে তার সাথে সমপরিমান পটাশিয়াম সালফেট নিয়ে ঘষলে ঠান্ডা মনে হবে এবং দইয়ের মতো গলে যাবে।
তথ্য সূত্র: কৃষি তথ্য সার্ভিস
   
   
November 16, 2013 | 6 years আগে

0 responses on "জেনে নিন ভেজাল সার চিনার উপায়"

Leave a Message

Your email address will not be published.

© eShikhon.com 2015-2019. All Right Reserved