সারাদেশে ৩ থেকে ৫ মাসব্যাপী ফ্রিল্যান্সিং কোর্স প্রশিক্ষণ, বৃত্তি+চাকরির সুযোগ।  মাত্র ১২,০০ থেকে ১৮,০০ টাকায় পাচ্ছেন ১২,০০০ থেকে ১৮,০০০ টাকার প্রতিটি কোর্স কুপনকোড: pro-offer  কিভাবে রেজিস্ট্রেশন করবেন দেখুন এখানে    আরো বিস্তারিত এখানে

ওয়েব ডিজাইন জানতে হলে কি কি শিখতে হবে?

ওয়েব ডিজাইন-

ওয়েব ডিজাইন হচ্ছে একটা ওয়েবসাইটের জন্য বাহ্যিক অবকাঠামো তৈরী করা । ওয়েব ডিজাইন মানে হচ্ছে একটা ওয়েবসাইট দেখতে কেমন হবে বা এর সাধারন রূপ কেমন হবে তা নির্ধারণ করা। অর্থাৎ ওয়েবসাইট দেখতে কেমন হবে বা এর সাধারন রূপ কেমন হবে তা নির্ধারণ করা । ওয়েব ডিজাইনারের মুল কাজ একটা পূর্ণাঙ্গ ওয়েব সাইটের টেম্পলেট তৈরি করা, যেমন এটার লেয়াউট কেমন হবে, হেডারে কোথায় মেনু কেমন হবে, সাইডবার হবে কিনা এবং ইমেজগুলো কিভাবে প্রদর্শন করবে ইত্যাদি ।

 

যেভাবে হবেন ওয়েব ডিজাইনার?

ওয়েব ডিজাইনার হতে হলে আগে আপনাকে ওয়েব ডিজাইন সম্পর্কে জানতে হবে। ওয়েব ডিজাইন সম্বন্ধে ভাল মত বুঝতে হবে। আমি আশা করছি এই টিউন এ আমি মোটামোটি বোঝাতে পেরেছি। এবার আপনি ভেবে দেখুন, ওয়েব ডিজাইন কি আপনার ভালো লাগে? এর প্রতি কি আপনার সত্যিকার অর্থে আগ্রহ আছে? এই ভাল লাগা বা আগ্রহের কারণ যদি হয় শুধু আয় করা বা টাকার লোভ তাহলে ওয়েব ডিজাইন শেখার বা ওয়েব ডিজাইনার হবার কথা ভুলে যান। আর যদি সত্যি সত্যি মন থেকে আপনার ওয়েব ডিজাইন ভাল লাগে এবং আগ্রহ আছে। তাহলে আপনি ওয়েব ডিজাইনার হতে পারবেন।

ওয়েব ডিজাইনার হতে হলে আপনাকে সবার আগে নিজেকে প্রস্তুত করে নিতে হবে। নিজেকে কিভাবে প্রস্তুত করবেন সেটা নিয়ে আমি পরের পর্বের একটি টিউনে আলোচনা করেছি।

প্রথমেই আপনাকে কাজ শিখতে হবে। অনেক সময় আর পরিশ্রম দিতে হবে। পরিশ্রম এর কোন বিকল্প নেই। যেকোনো কাজেই আপনাকে সফল হতে হলে অনেক পরিশ্রম করতে হবে। ওয়েব ডিজাইন নিয়ে ঘাটাঘাটি করুন। ওয়েব ডিজাইন নিয়ে যত পারবেন জানার চেষ্টা করুন।

নিজের মনকে স্থির করুন, লক্ষ্য স্থির করুন। আপনার লক্ষ একটাই আপনাকে একজন ভালো এবং সফল ওয়েব ডিজাইনার হতে হবে। ধীরে ধীরে মনোযোগ সহকারে কাজ শিখতে থাকুন, শেখার পাশাপাশি যা শিখেছেন তা নিয়েই কাজ করুন। নিজে নিজে এসব নিয়ে ঘাটাঘাটি করুন, বিভিন্ন ব্লগ পড়ুন, বই পড়ুন, ধৈর্য হারিয়ে ফেলবেন না। ধৈর্য যেকোনো কাজের ক্ষেত্রে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ধৈর্য সহকারে কাজ শিখতে থাকুন আর করতে থাকুন।

 

আরো দেখুন:ওয়েব ডিজাইন জানতে হলে কি কি শিখতে হবে?

ওয়েব ডিজাইন জানতে হলে কি কি শিখতে হবে-

ওয়েব ডিজাইন বিভিন্ন পরিপ্রেক্ষিতের উপর নির্ভর করে মোটামুটি কয়েক ধরনের ল্যাঙ্গুয়েজ এবং স্ক্রিপ্ট ব্যবহার করে করা হয়ে থাকে আবার শুরুতে ফটোশপ ব্যবহার করে প্রথমে এটার ঘটন নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। এদের মধ্যে বহুল ব্যবহৃত গুলো নিচে আলোচনা করা হল –

১। ওয়েব ডিজাইন সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা থাকতে হবে।

২। এইচটিএমএল (HTML): HTML বা HyperText Markup Language জানতে হবে। এটার কাজ মূলত কিছু ট্যাগ ব্যবহার করে ওয়েব পেজ গঠন করা । এগুলো মানুষ পড়তে পারে । প্রোগ্রামিং ভাষা এর মত হাবিজাবি হ-জ-ব-র-ল ভাষা না । এগুলো তে কিছু পরিচিত শব্দ ব্যবহার করা হয় । এইচটিএমএল কে ওয়েবপেজ এর কংকাল বলা হয় । এটি ওয়েবপেজ এর গঠন তৈরি করে ।HTML একটি মার্কআপ ভাষা। ব্রাউজার কোন একটা সাইটের ভিউয়ার যা দেখতে পায় তা এইচটিএমএল দিয়ে নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। এটি কোন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ নয়, বরং যেকোনো প্রোগ্রামিং থেকে অনেক সহজ। এটা এতটাই সহজ যে যেকোনো সাধারন মানুষ যে প্রোগ্রামিং শিখতে চায় না, সেও হাসির ছলে ছলে HTML শিখে নিতে পারে। যেমন আমরা যদি কোন একটা প্যারাগ্রাপ প্রদর্শন করতে চাই তখন এমন লিখতে হয়।

আরো দেখুন: কিভাবে ওয়েব ডিজাইনার হিসাবে ক্যারিয়ার শুরু করবেন-

<p>This is a paragraph</p>

অর্থাৎ ‘This is a paragraph’ এই টেক্সট টুকো ব্রাউজার এ একটা প্যারাগ্রাপ হিসেবে প্রদর্শিত হবে।

৩। সিএসএস (CSS): এটাও একটা মার্কআপ ল্যাঙ্গুয়েজ। CSS বা Cascading Style Sheet জানতে হবে । এটি দিয়ে মুলত ওয়েবপেজ গুলো ডিজাইন করা হয় । শুধু এইচটিএমএল দিয়ে ওয়েবপেজ বানালে তা শুধু কিছু লেখা মাত্র দেখা যাবে। কিন্তু সেই ওয়েবপেজ কে সুন্দর রুপ দিতে হলে আপনার দরকার হবে সিএসএস। এইচটিএমএল হচ্ছে ওয়েব পেজ এর কংকাল আর সিএসএস হচ্ছে তার উপরে মাংস, চামড়া ইত্যাদি। বুঝতেই পারছেন, সিএসএস ছাড়া এইচটিএমএল একটি কংকাল এর মতই দেখাবে । সিএসএস এইচটিএমএল এর গঠনে রুপ দেয় ।এটি নির্ধারণ করে দেয় ব্রাউজার জেই কন্টেন্ট HTML দ্বারা প্রদর্শিত হবে সেটা দেখতে কেমন হবে। অর্থাৎ লেখাটার ফন্ট কত বড় হবে। পাশে কতটুকু জায়গা খালি থাকবে। একটা লেখা থেকে আরেকটার দূরত্ব কতটুকু হবে, এটির রঙ কি হবে বেকগ্রাউন্ড কি হবে, এমনকি সর্বশেষ CSS3 দিয়ে কন্টেন্টে এনিমেশন ও যুক্ত করা যায়। যেমনঃ পূর্বে আমরা একটা HTML paragraph লিখেছিলাম। এখন আমরা চাইলে নিচের কোডটুকু দিয়ে সেই প্যারাগ্রাপ এর টেক্সট এর রঙ লাল করে দিতে পারি।

p {color: red;}

৪। জাভাস্ক্রিপ্ট/জেকুয়েরি (javascript/jQuery):  JavaScript জানতে হবে। এটি একটি ক্লায়েন্ট সাইড স্ক্রিপটিং ভাষা । এটিকে ব্রাউজার এর ভাষা ও বলা হয় । জাভাস্ক্রিপ্ট শিখলে আপনি চলে যাবেন ওয়েব ডিজাইন এর একটি নতুন অধ্যায়ে। ভালো মানের ওয়েব ডিজাইনার হতে হলে আপনাকে অবশ্যই জাভাস্ক্রিপ্ট শিখতে হবে । এই দুটোকে মূলত প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজের কিছুটা কাছাকাছি ধরা যায়। মূলত দু,টি জিনিসের কাজ একি তবে জেকুয়েরি হচ্ছে জাভাস্ক্রিপ্টেরই একটা রূপ যা সাইটে জাভাস্ক্রিপ্ট ব্যবহারকে অনেকটাই সহজ করে। আর এগুলোর কাজ হচ্ছে সাইটটা ইন্টারেক্টিভ করা। অর্থাৎ ভিজিটর একটা বাটনে ক্লিক করলে মেনু ওপেন হবে। অথবা একটা ফর্ম সাবমিট করলে কনফার্মেশন মেসেজ দেখাবে ইত্যাদি।

৫। Adobe photoshop: এটা তো সবাই জানেন এটা দিয়ে কি করে! এখানে যে মুল কাজটি শিখতে হবে তাহল পিএসডি থেকে এইচটিএমএল টেমপ্লেট (PSD to HTML) বানানো তবে কোন ওয়েব সাইটের ব্যানার, ব্যাকগ্রাউন্ড ইমেজ, বাটন ইত্যাদি create করতেও এটা লাগবে!

৬। HTML5 ও CSS3 জানতে হবে। এগুলো মূলত যথাক্রমে HTML ও CSS এর নতুন ভার্সন। এগুলো শিখতে হলে অবশ্যই প্রথমে HTML ও CSS সম্বন্ধে জানতে হবে।

৭। এছাড়া সিএসএস ফ্রেমওয়ার্ক, রেস্পন্সিভ ডিজাইন ইত্যাদি শিখতে হবে ।

 

আরো দেখুন:ওয়েব ডিজাইনের চাহিদা

কীভাবে কাজ করলে একজন সফল ওয়েব ডিজাইনার হওয়া সম্ভব-

যেকোন কাজের প্রতি ভালোবাসা, সততা থাকতে হবে। আর ওয়েব ডিজাইনের জন্য আমি ২টি কাজের কথা বলব। এক, এটি সৃজনশীল পেশা যা একই সাথে সহজ, কারণ নিজের ইচ্ছায় করা যায়। আবার একই সাথে কঠিন, কারণ অন্যকে নিজের কাজ দিয়ে প্রভাবিত ও সন্তুষ্ট করতে হয়। কাজেই এই কাজটি অনেক চ্যালেঞ্জিং। নিজের রুচির উপর এককভাবে নির্ভর না করে, কাজের ধরনটা বোঝা এবং যাদের জন্য করা হবে তাদেরকে বোঝাটা জরুরি।ওয়েবসাইট যদি ভালো না হয় তাহলে ক্লাইন্টকে আকৃষ্ট করাটা খুব কঠিন হয়ে পড়বে। দুই, প্রযুক্তি পাল্টে যাচ্ছে রাতারাতি, পরিবর্তন হচ্ছে ইউজারের রুচি আর চাহিদা।

ওয়েব ডিজাইন শেখা এবং কাজ পাওয়া সহজ দেখে অনেকেই এই দিকে ঝুঁকছে সেই সাথে বাড়ছে প্রতিযোগিতা। তাই নতুন পরিবর্তন সম্পর্কে জানা এবং নিজের জন্যই নিজেকে ডেভেলপ করা অবশ্যই দরকার। যেমন- এখন ট্রেন্ড চলছে বড় এবং সুন্দর ইমেজ বা ভিডিও ব্যাকগ্রাউন্ড, ফ্ল্যাট ডিজাইন, নান্দনিক টাইপোগ্রাফির; এছাড়া এখন অন ক্লিক অ্যাকশন খুবই চাহিদাবহুল। যার জন্য ব্যবহার করতে হবে জেকুয়েরি, জাভাস্ক্রিপ্ট। ওয়েব ডিজাইনারকে জানতে হবে সার্চ ইঞ্জিনে ওয়েবসাইটের র‌্যাংকিং কীভাবে বাড়ানো যায় এবং বিজ্ঞাপন কোথায় ও কীভাবে দিতে হবে যাতে কাজ সম্পন্ন হয়, আর জানতে হবে ডোমেইন এবং হোস্টিংয়ের ব্যাপারে।

আরো দেখুন:ওয়েব ডিজাইন কেন শিখবেন?

নিচের বিষয়গুলো অবশ্যই মাথায় রেখে কাজ করলে আপনি অবশ্যই ভাল করতে পারবেন-

১। আপনার কাজের জন্য নিখাদ আবেগ

২। বিষয় সম্বন্ধে স্পষ্ট জ্ঞান

৩। আপনার ইন্ডাস্ট্রিতে কী হচ্ছে খেয়াল রাখুন

৪। মন দিয়ে অডিয়েন্সের কথা শুনুন

৫। আপনার ইন্ডাস্ট্রির মানুষজনের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ান

৬। ঝুঁকি নিন

৭। সঠিক সময় ব্যবস্থাপনা করুন

৮। চোখ কান খোলা রাখুন

আরো দেখুন:ওয়েব ডিজাইন কি?

কোথায় শিখবেন ওয়েব ডিজাইন-

অনলাইনে কাজের কোনো শেষ নেই। বরং ওয়েবসাইট ডিজাইনারের সংকট রয়েছে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশিদের কাজেরও তাই সম্ভাবনা অফুরন্ত। তবে দুঃখজনক হচ্ছে, আমরা চাইলেও ভালো কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষা নিতে পারি না। হাতে গোনা কয়েকটি মানসম্মত প্রতিষ্ঠান থাকলেও এগুলো আবার ঢাকাভিত্তিক। তাই মফস্বলের কেউ এ সুযোগগুলো পায় না।এক্ষেত্রে আপনি ইশিখন থেকে ঘরে বসে অনলাইনে লাইভ ক্লাসের মাধ্যমে ওয়েব ডিজাইন কোর্সটি করতে পারেন। কারণ- ইশিখনে রয়েছে দীর্ঘদিন বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস অথবা কোনো প্রতিষ্ঠানে কাজ করছে এমন কিছু প্রফেশনাল ট্রেইনার। ইশিখন থেকে কোর্স করলে যারা হবে আপনার ট্রেইনার। এছাড়াও ইশিখন থেকে কোর্স করলে আপনি কোর্স সম্পর্কিত  অন্যান্য সকল সুবিধাসমূহ পাবেন।

আরো দেখুন:ওয়েব ডিজাইন কি? কিভাবে শিখবেন ওয়েব ডিজাইন?

ইশিখনে  ওয়েব ডিজাইন শিখার এর বিশেষ সুবিধা-

1.লাইভ ক্লাস মিস করলে পরের দিন কোর্সের ভেতর উক্ত ক্লাসের ভিডিও রেকর্ডিং ও আলোচিত ফাইল সমুহ পাবেন।
2.লাইভ ক্লাসের সম্পূর্ণ ফ্রি ভিডিও কোর্স, ( শুধুমাত্র এই ভিডিও কোর্সই অনেক প্রতিষ্ঠান হাজার হাজার টাকায় বিক্রি করে।)
3.প্রতিটি ক্লাস শেষে এসাইনমেন্ট জমা দেওয়া। (প্রতিটি এসাইনমেন্ট এর জন্য ১০ মার্ক) প্রতিটি ক্লাসের লাইভ ক্লাসের পাশাপাশি প্রাকটিজ ফাইল পাবেন এবং কনটেন্ট পাবেন।
4.প্রতিটি ক্লাসের প্রথম ১৫ মিনিট আগের ক্লাসের সমস্যাগুলো সমাধান হবে, পরের ১ ঘন্টা মুল ক্লাস শেষ ১৫ মিনিট প্রশ্নোত্তর পর্ব প্রতিটি ক্লাসের শেষে ১০ নাম্বারের মডেল টেস্ট
5.এই মডেল টেস্ট মার্ক এবং এসাইমেন্ট মার্ক ও নিয়মিত উপস্থিতির উপর ভিত্তি করেই পরবর্তীতে আপনার সার্টিফিকেট এর মান নির্ধারণ হবে।
6.কোর্স শেষে সার্টিফিকেট
7.লাইভ ক্লাস সমুহের ডিভিডি্।

 

 

আরো দেখুন:ওয়েব ডিজাইন জানতে হলে কি কি শিখতে হবে?

আরো দেখুন:ওয়েব ডিজাইনের চাহিদা

আরো দেখুন: কিভাবে ওয়েব ডিজাইনার হিসাবে ক্যারিয়ার শুরু করবেন-

আরো দেখুন:ওয়েব ডিজাইন কেন শিখবেন?

আরো দেখুন:ওয়েব ডিজাইন কি?

আরো দেখুন:ওয়েব ডিজাইন কি? কিভাবে শিখবেন ওয়েব ডিজাইন?

আরো দেখুন:আসলেই কি আপনি ওয়েব ডিজাইন জানেন?

   
   

0 responses on "ওয়েব ডিজাইন জানতে হলে কি কি শিখতে হবে?"

Leave a Message

Your email address will not be published.

Varify Certificate

top